Hoop PlusTollywood

ঋতুকালীন সময়ে অপরাজিতাকে প্রাইভেট টয়লেট ব্যাবহার করতে দেননি গার্গী রায়চৌধুরী

অপরাজিতা আঢ‍্য (Aparajita Adhya) সত্যিই ‘অপরাজিতা’। একসময় তাঁকে বাংলা ফিল্মে নেওয়ার বিরোধী ছিলেন টলিউডের এক নামী নায়ক। পরবর্তীকালে সেই নায়কের স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করে সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন অপরাজিতা।

পঁচিশ বছর ইন্ডাস্ট্রিতে কাটিয়ে ফেলেছেন অপরাজিতা। তাঁর জন্মের সময় থেকেই লড়াই দিয়ে লেখা হয়েছে তাঁর জীবনের গল্প। অপরাজিতার ছোটবেলায় তাঁর বাবার কারখানা লকআউট হয়ে যায়। মানসিক অবসাদে ভুগতে শুরু করেন তিনি। তখনও অপরাজিতার মা স্কুলে চাকরি পাননি। অপরাজিতা যখন মায়ের গর্ভে ছিলেন, তখন হঠাৎই তাঁর মায়ের লেবার পেইন শুরু হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ছটা- সাতটার হাওড়ায় সেই সময় অপরাজিতার বাবা ট‍্যাক্সি খুঁজেও পাননি। তখন অপরাজিতার মা একাই বাসে উঠে মেডিক্যাল কলেজে চলে যান। হাসপাতালে ঢোকার সময় তাঁর মা অনুভব করেন, শরীর থেকে একটা কিছু ছিটকে বেরিয়ে গেল। সেই ‘একটা কিছু’ ছিলেন অপরাজিতা। এরপর মেডিক্যাল কলেজে তাঁকে অত্যন্ত সাবধানতার সঙ্গে কিছুদিন রাখা হয়েছিল। কারণ তাঁর বাঁচার কোনো আশা দিচ্ছিলেন না চিকিৎসক। কিন্তু লড়াই করে বেঁচে উঠেছিলেন তিনি। মা নাম দিয়েছিলেন ‘অপরাজিতা’।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Aparajita Adhya (@adhyaaparajita)

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হতেই শুটিং দেখতে এসেছিলেন অপরাজিতা। কিন্তু তিনি জগন্নাথ গুহ (Jahannath Guha)-র নজরে পড়ে যান। তাঁর স্ক্রিন টেস্ট নেন জগন্নাথবাবু। অডিশনে সিলেক্ট হন অপরাজিতা। পরের দিন থেকেই শুরু হয়ে যায় শুটিং। অপরাজিতাকে সর্বাধিক পরিচিতি দিয়েছে টেলিভিশন। তবে অপরাজিতার মতে, বর্তমানে টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রি অনেকটাই পাল্টে গিয়েছে।

কিন্তু প্রায় বারো বছর পূর্বের একটি ঘটনা এখনও ভুলতে পারেননি অপরাজিতা। কলকাতার একটি নামী স্টুডিওতে চলছিল শুটিং। একই সিরিয়ালে অভিনয় করছিলেন গার্গী রায়চৌধুরী (Gargee Roychowdhury)। অপরাজিতার মেকআপ রুমে প্রাইভেট টয়লেট ছিল না। এদিকে সেই দিন অপরাজিতার মেনস্ট্রুয়েশন হয়েছে। এমতাবস্থায় ওই স্টুডিওর পাবলিক টয়লেটে যাওয়া মোটেও উচিত ছিল না অপরাজিতার পক্ষে। কারণ সেই টয়লেট ছিল অত্যন্ত নোংরা। কিন্তু গার্গীর মেকআপ রুমে একটি প্রাইভেট টয়লেট ছিল। অপরাজিতা ও সমগ্র ইউনিটের বারবার অনুরোধ সত্ত্বেও গার্গী সেদিন অপরাজিতাকে তাঁর মেকআপ রুমের প্রাইভেট টয়লেট ব্যবহার করতে দেননি। ফলে অপরাজিতাকে ওই নোংরা পাবলিক টয়লেট ব্যবহার করতে হয়েছিল। একজন মেয়ে হয়ে আরেকটি মেয়ের প্রতি এই ধরনের অমানবিকতা আজও ভোলেননি অপরাজিতা। গার্গীর সঙ্গে সৌজন্যমূলক ব্যবহার রয়েছে তাঁর। কিন্তু অপরাজিতা তাঁর সাথে বন্ধুত্ব তৈরি করতে চান না।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Aparajita Adhya (@adhyaaparajita)