প্রতি দশক জুড়ে বাবার সন্তান আসুক, কেন এমন মন্তব্য সারা আলি খানের!

সইফ আলি খানের প্রথম সন্তান সারা আলি খান। ১৯৭০ এ জন্য সইফের নিজের। মাত্র ২১ বছরেই বিয়ে করেন অমৃতা সিং কে। এর পরপর সইফ ও অমৃতার কোলে এসে সারা আলী খান। ১৯৯৫ এ সারার জন্মের পর ফের ২০০১ এ ভূমিষ্ঠ হয় ইব্রাহিম আলী খান। এরপর বিচ্ছেদ অমৃতার সঙ্গে। জুটি বাঁধেন করিনা কাপুরের সঙ্গে। তৈমুর আসে ২০১৬ তে, এবারে চতুর্থ সন্তান আসে ২০২১ এ। হিসেব করে দেখলে প্রতি দশকে সইফ আলী খান নতুন নতুন সন্তানের বাবা হচ্ছেন।

কোনো সাধারণ মানুষ ভুল করেও ৪০ এর পর বাবা হতে চাননা, কারণ অর্থনৈতিক অবস্থা। এদিকে সইফ প্রতি দশক জুড়ে ছক্কা হাকাচ্ছেন। ব্যাপারটা হল, সম্প্রতি সারা আলী খান একটি সংবাদ মাধ্যমে ইন্টারভিউ দেন, যেখানে তিনি তার কনিষ্ঠ ভাইয়ের সঙ্গে প্রথম দর্শনের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন সকলের সঙ্গে।

সারার কথায়, প্রথম যখন করিনার দ্বিতীয় সন্তানের মুখ দেখেনি সারা, মনে হয়েছিল ওটা একটা মিষ্টি বল। ওকে দেখে গলে গিয়েছিলেন অভিনেত্রী সারা। তৈমুর ও করিনার দ্বিতীয় সন্তানকে সারা খুবই পছন্দ করেন এবং খুব ভালোবাসেন। ওই সাক্ষাৎকারে তার ছোট ভাইদের কথা বলতে গিয়ে যতটা আনন্দ পেয়েছিলেন তার থেকে বেশি আনন্দ পান বাবা সইফ আলী খানের কথা বলে।

ওই সাক্ষাৎকারে সারা বলেন, “এখনতো আমি আমার বাবাকে মজা করে বলি প্রত্যেক দশকে তাঁর একটা করে সন্তান আছে। বিশ, ত্রিশ, চল্লিশ এখন পঞ্চাশেও। উনি সত্যিই খুব ভাগ্যবান প্রত্যেক দশকে আলাদাভাবে বাবা হওয়ার স্বাদ অনুভব করতে পেরেছেন। ও আমার বাবা এবং করিনার জীবনে আরো বেশি আনন্দ এবং সুখ এনে দেবে। ওদের জন্য আমি খুব খুশি।”