Hoop PlusTollywood

Rajatabha Dutta: টলিউডের ঘুরে দাঁড়ানোর মতো ক্ষমতা নেই: রজতাভ দত্ত

তিন দশক ধরে টলিউডের অত্যন্ত পরিচিত মুখ রজতাভ দত্ত (Rajatabha Dutta)। থিয়েটার, সিরিয়াল, ফিল্ম সর্বত্র তাঁর অবাধ বিচরণ। কাজ করেছেন বলিউডের ফিল্মেও। কিন্তু রজতাভকে বরাবর দেখা গেছে খলনায়কের ভূমিকায়। তাঁর আগামী ফিল্ম ‘ইকির মিকির’-এও তাঁর চরিত্র নেতিবাচক।

পরিচালক রাতুল মুখোপাধ্যায় (Ratul Mukherjee)-এর প্রথম ফিল্ম ‘ইকির মিকির’ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে রজতাভ জানালেন, তিনটি চরিত্রের চোখ দিয়ে তিন রকম ভাবে দেখা হচ্ছে রজতাভর ব্যক্তিত্বকে। অথচ আততায়ী হিসাবে মূল সন্দেহভাজন তিনিই। এই ধরনের চরিত্র তাঁর কাছে যথেষ্ট আকর্ষক। কোভিড পরিস্থিতিতে নানারকম প্রতিবন্ধকতার মধ্যে শুট হলেও কোনও কিছুই বেমানান লাগেনি। তাছাড়া রজতাভ নতুন পরিচালকদের সঙ্গে কাজ করতে পছন্দ করেন। এর ফলে নতুন প্রজন্মের চিন্তাধারার পাশাপাশি দর্শকদের সঙ্গেও নিজেকে খাপ খাইয়ে নেওয়ার সুযোগ মেলে। রজতাভর সঙ্গে এই ফিল্মে অভিনয় করেছেন রূপাঞ্জনা মিত্র (Rupanjana Mitra) ও সৌরভ (Sourav)। দুজনের অভিনয়ই রজতাভর ভালো লেগেছে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by ajiteshsippy (@ajiteshsippy)

এই মুহূর্তে রজতাভকে অধিকাংশ থ্রিলার নাটক, ওয়েব সিরিজ ও ফিল্মে দেখা যাচ্ছে। রজতাভ মনে করেন, থ্রিলার কাহিনীতে চরিত্রে অনেক মোচড় থাকে। গল্পের মধ্যেই ধীরে ধীরে চরিত্রগুলির বিভিন্ন স্তর সামনে আসে যা রজতাভর অত্যন্ত পছন্দের। তবে বাণিজ্যিক ফিল্মে খল চরিত্র অন্য রকম। বর্তমানে ফিল্ম বিষয়-নির্ভর হওয়ার ফলে নায়ক-নায়িকার পাশাপাশি খল চরিত্র মনে দাগ কাটে যা এক অভিনেতার কাছে পরম প্রাপ্তি। বর্তমানে খল চরিত্রগুলির নেতিবাচকতার মধ্যেও তার সুখ-দুঃখকে বর্ণনা করা হয়। আগের মতো একই সরলরেখায় তা বাঁধা থাকে না।

টানা খল চরিত্রে অভিনয়ের ফলে মফস্বলের মানুষদের কাছে রজতাভ সাক্ষাৎ ভিলেন, খুব খারাপ মানুষ। তবে কিছুটা হলেও এই চিন্তাধারা বদলে দিয়েছে কমেডি শো। কমেডি শোয়ে ঠাট্টা-তামাশা করতে করতে বাস্তবের রজতাভ বেরিয়ে আসেন। ফলে দর্শক বুঝতে পারেন আসল মানুষটি এতটা খারাপ নয়। তবে মেগা সিরিয়াল বা টেলিফিল্মে রজতাভ ইতিবাচক চরিত্রেও অভিনয় করেছেন। তবে এই মুহূর্তে থিয়েটার ও ফিল্ম দুটোতেই সমান ভাবে কাজ করতে চান রজতাভ।

ফিল্মে 1995 সাল থেকে অভিনয় করছেন রজতাভ। পাশাপাশি সিরিয়ালের অভিনয় করছিলেন। কিন্তু সময়ের অভাবে সিরিয়ালে কাজ করা বন্ধ করে দেন তিনি। পরবর্তীকালে অল্প সময়ের কাজ বা ক্যামিও করার ডাক এসেছে ছোট পর্দা থেকে। কিন্তু রজতাভর মনে হয়েছে, আমূল বদলে গিয়েছে টেলিভিশন সিরিয়াল। ফলে অভিনয় করে আগের মতো আনন্দ পাবেন না। তবে সিরিয়ালে ফিরবেন না বলে মনে করেন না তিনি। বড় পর্দার কাজ না থাকলে ছোট পর্দাতেই ফিরবেন তিনি কারণ সেখানে একটি সিরিয়াল বহুদিন ধরে চলার ফলে রোজগার নিয়ে কিছুটা হলেও নিশ্চিন্ত থাকা যায়। তবে ফিল্ম ও সিরিয়াল একসঙ্গে নয়।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Ratool Mukherjee (@rattull23)

সাড়ে তিন বছর ধরে ‘কুইনাইন’ ব্যান্ডের সদস্য ছিলেন রজতাভ। কিন্তু অভিনয়ের ফলে গলার পরিবর্তনের জন্য আর গান গাইতে পারবেন না তিনি। বাকি সদস্যদেরও ধৈর্য্যের অভাব ছিল, সময়ের অভাব ছিল। ফলে ভেঙে গেল ব্যান্ড। জনপ্রিয় রিয়েলিটি শোয়ের বিচারকের আসনে ছিলেন টানা দশ বছর। মজার শো ভালো লাগত রজতাভর। কিন্তু ধীরে ধীরে সেই শোয়ের নিয়ন্ত্রণ চলে গেল মুম্বইয়ের হাতে। বাঙালির রসবোধ নষ্ট হল। হিন্দি ট‍্যাগলাইনকে বাংলা ভাষায় বলতে হত চ্যানেলের নির্দেশে। কিন্তু বাংলা ভাষায় তার অর্থ দাঁড়াত অন্য রকম।

রজতাভ মনে করেন না, বর্তমান টলিউড ইন্ডাস্ট্রির ঘুরে দাঁড়িয়ে কর্পোরেটের সঙ্গে যুদ্ধের ক্ষমতা আছে বলে। কারণ তাঁরা নিজস্ব সংস্কৃতির ক্ষতি উপলব্ধি করেন না। একশো আশির বেশি ফিল্মে কাজ করলেও পরিচালক হতে চান না রজতাভ। তাঁর মনে হয়, কম্যান্ড দেওয়া তাঁর দ্বারা হবে না। হোয়‍্যাটসঅ্যাপ ছাড়া অন্য কোনও সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেন না রজতাভ। ফেসবুকে তাঁর নামে একাধিক ভুয়ো প্রোফাইল রয়েছে। রজতাভ মনে করেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় শিল্পীদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বেশি চর্চা হয়। কিন্তু তাঁরা কেমন অভিনয় করেন, তা কেউ জানতে চান না।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Ratool Mukherjee (@rattull23)