Hoop Life

Hair Care Tips: ৭ দিনে চুল হবে ঘন কালো লম্বা, মেনে চলুন এই রুটিন

মাত্র সাত দিনেই আপনি আপনার চুলকে একেবারে সুন্দর ঘন কালো করতে পারেন। তার জন্য আপনাকে কতগুলি নিয়ম ফলো করতে হবে এ নিয়ম যদি সঠিকভাবে ফলো করেন তাহলেই দেখবেন আপনার চুল কত সুন্দর এবং চুলকে ঘন কালো হয়ে গেছে। চুল পড়ার সমস্যা একেবারে চলে যাবে। চুলে যদি খুশকির সমস্যা হয়, তাও দূর হয়ে যাবে মাত্র সাত দিনে। Hoophaap এর পাতায় দেখে নিন অসাধারণ এই পদ্ধতি।

প্রথম দিন – খুব ভালো করেই শ্যাম্পু করে নিতে হবে। সেক্ষেত্রে কোন বেবি শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন বা মাইল্ড শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন। যাতে চুল কোনভাবেই না নোংরা থাকে, ভালো করে চুল পরিষ্কার করে ধুয়ে নিয়ে রোদে ভালো করে শুকিয়ে নিতে হবে। যাতে শোওয়ার সময় চুল ভালো করে বেঁধে নিয়ে শুতে হবে। যাতে কোনোভাবেই না চুলে জট থাকে।

দ্বিতীয় দিন – চুলে ভালো করে আমার অয়েল ম্যাসাজ করতে হবে এই তেল বানানোর জন্য আপনার লাগবে ১০ থেকে ১৫ টা আমন্ড বাদাম ভালো করে গুঁড়ো করে নিতে হবে। এর পর কড়াইতে নারকেল তেল অন্তত দু কাপ নারকেল তেল দিয়ে দিতে হবে। তেল সামান্য একটু গরম হয়ে এলেই আমন্ড বাদামের কুচি দিয়ে দিতে হবে। কম আঁচে রাখতে হবে যখন দেখবেন বাদাম হালকা খয়েরি খয়েরি হয়ে আসছে। তখনই বুঝতে হবে, তেল সুন্দরভাবে তৈরি হয়ে আসছে। এরপর বেশ খানিকক্ষন ধরে রাখার পরে গ্যাস বন্ধ করে ছেঁকে নিলেই একেবারে তৈরি হয়ে যাবে। ঘরে বানানো আমন্ড অয়েল তেল চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত ভাল করে দিয়ে ম্যাসাজ করে নিতে হবে।

তৃতীয় দিন – এই দিন চুলকে একটু বিশ্রাম দিতে হবে। তার জন্য এই দিন ভালো করে দিনে অন্তত তিনবার চুল আছে বেঁধে নিতে হবে। যাতে চুল কোনভাবেই জট না পড়ে তাহলে কিন্তু চুল অনেক বেশি নষ্ট হয়ে যাবে।

চতুর্থ দিন – এই দিনে চুলের জন্য একটি হেয়ার প্যাক বানাতে হবে এই হেয়ার প্যাক তৈরির জন্য প্রয়োজন এক মুঠো নারকেল আর দরকার ৩ টেবিল চামচ ফ্ল্যাক্স সিড জেল। কোন ওষুধের দোকানে অথবা দশকর্মা ভান্ডার খুব সহজেই কিনতে পাওয়া যায়। দাম খুব একটা বেশি নয়। সেক্ষেত্রে এক লিটার জলের মধ্যে ৩ টেবিল চামচ দিয়ে ভাল করে গরম করে নিয়ে যখন দেখবেন, জেল বের হয়ে গেছে তখন বুঝবেন এখান থেকে সহজেই জেল পাওয়া যাবে। এরপর থেকে নিলেই আপনি সৌন্দর্যের পেয়ে যাবেন। এরপর এই জেলের সঙ্গে নারকেল ভালো করে নারকেল কুরিয়ে নিতে হবে। সামান্য জল দিতে হবে। তারপরে থেকে নিলে খুব সুন্দর হেয়ার প্যাক পেয়ে যাবেন এটি চুলের ডগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ভালো করে লাগিয়ে নিন। অন্তত এক ঘণ্টা রেখে কোন শ্যাম্পু দিয়ে শ্যাম্পু করে ফেলুন।

পঞ্চম দিন – এই দিন নারকেল তেল গরম করে তার মধ্যে দুটি ভিটামিন ই ক্যাপসুল ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে চুলের ডগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ভালো করে লাগিয়ে আধ ঘন্টা রেখে দিন। তারপর একটি তোয়ালেকে গরম জলে ডুবিয়ে সেই গরম তোয়ালে চুলে বেঁধে রেখে দিন। অন্তত আধঘন্টা মাঝে মধ্যে তোয়ালে খুলে গরম জলের ভাপ নিয়ে আবার লাগাতে পারেন। এইভাবে রেখে স্নান করে আসার পর চুল শুকিয়ে নিয়ে চুল সুন্দর করে বেঁধে রাত্রে শুয়ে পড়তে হবে।

ষষ্ঠ দিন – এরপর একটি হেয়ার প্যাক বানাতে হবে। এর জন্য প্রয়োজন এক মুঠো কারিপাতা এবং তার সাথে প্রয়োজন ২ টেবিল চামচ টক দই ভালো করে মিশিয়ে চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত ভালো করে লাগিয়ে এক ঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তম দিন- এই দিন লাগাতে হবে হেয়ার টোনার। এর জন্য বানাতে হবে, হেয়ার টনিক। আর তার জন্য এক লিটার জলের মধ্যে এক মুঠো কারি পাতা, ২ টেবিল চামচ মেথি ভালো করে শুকিয়ে নিতে হবে। অন্তত দশ মিনিট ধরে এরপরে দেখবেন খুব সুন্দর একটি হেয়ার টোনার পেয়ে গেছেন। চুলের গোড়ায় গোড়ায় ভালো করে লাগিয়ে নিলেই আপনার চুল অনেক সুন্দর হয়ে যাবে।