Skin Care: ৭ দিনে ত্বক উজ্জ্বল করার হওয়ার সাতটি অসাধারণ ফেসপ্যাক

ফর্সা হওয়ার জন্য ৭ দিনের ৭ টি ফেসপ্যাক অবশ্যই ব্যবহার করতে পারেন। তবে ঈশ্বরপ্রদত্ত রংকে একেবারে ফর্সা করা কারো পক্ষে সম্ভব নয়। তবে এই সাতদিনে যদি সাতটি ফেসপ্যাক আপনি ব্যবহার করতে পারেন, তাহলে সাতদিন পরে ত্বক অনেক বেশি পরিষ্কার হয়ে যাবে।

১) গুঁড়ো দুধ ও লেবুর ফেসপ্যাক -»
একটি পাত্রে ১ চা চামচ গুঁড়ো দুধ, ২ চা চামচ লেবুর রস আর ১/২ চা চামচ মধুর সাথে মিশিয়ে নিতে হবে। এবার পুরো মুখে ১০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। ত্বক পরিষ্কার হওয়ার সাথে সাথে আগের তুলনায় অনেকটা ঝলমলে হয়ে উঠবে। শুষ্ক তৈলাক্ত এবং কম্বিনেশন সব রকম ত্বকেই এই প্যাক ব্যবহার করা যাবে। লেবুতে থাকা প্রাকৃতিক  ব্লিচিং উপাদান মধু আর দুধের সাথে মিশে ত্বক ফর্সা করে তুলতে সাহায্য করে। প্যাকটি তৈরি করে তেমন কোন বাড়তি ঝামেলাও নেই, আর উপাদানগুলো প্রত্যেকের রান্নাঘরেই সহজেই একটু খোঁজ নেই পেয়ে যাবেন। আরেকটি অতি গুরুত্বপূর্ণ কথা,  নিয়মিত এই প্যাক লাগালে ত্বকে ব্রণর  সমস্যাও দূর হবে।

২) টক দই ও ওটস মিল এর ফেসপ্যাক -»
সারারাত ১ টেবিল চামচ ওটস ভিজিয়ে রেখে সকালে এটি পেস্ট করে এর সাথে ১ টেবিল চামচ টক দই মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করুন। এটি নিশ্চিতভাবে ত্বক ফর্সা করে। নিয়মিত ব্যবহারে অবশ্যই ভালো ফল পাবেন। যাদের শুষ্ক থেকে নরমাল ত্বক তারা অবশ্যই এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করুন।

৩) আলুর খোসার ফেসপ্যাক -»
লেবুর রসের মত আলুর খোসায় ব্লিচিং উপাদান আছে । আলু খোসার পেস্ট নিয়মিত ত্বকে লাগান। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক উজ্জ্বল আর ফ্রেশ হবে। সব ধরনের ত্বকেই এই প্যাক ব্যবহার করা যাবে। আলুর খোসা যথেষ্ট উপকারী একটি উপাদান। তাই আর আলুর খোসা ফেলে না দিয়ে আলুর খোসা কে রূপচর্চার কাজে ব্যবহার করুন।

৪) হলুদ ও টমেটোর ফেসপ্যাক -»
উজ্জ্বল ত্বক পেতে এক চা চামচ হলুদ, ১ চা চামচ টমেটো বা লেবুর রসের সাথে মিশিয়ে মুখের ত্বকে লাগান নিয়মিত। অবশ্যই ত্বক ফর্সা হবে। আমরা জানি টমেটো ত্বকের কালো দাগ দূর করতে কতোটা কার্যকরী। টমেটোর মধ্যে থাকা প্রাকৃতিক ব্লিচিং উপাদান আর হলুদের ভেষজ উপাদান ত্বক ফর্সা করতে একসাথে কাজ করে। স্বাভাবিক থেকে তৈলাক্ত এবং শুষ্ক ত্বকে এই ফেস প্যাকটি ব্যবহার করা যাবে। তবে আপনি চাইলে আপনার যদি কম্বিনেশন ত্বক হয় তা হলেও এটি ব্যবহার করতে পারেন। তবে টমেটোর অনেকের ত্বকের মধ্যে এলার্জি বেরিয়ে যায়। তারা অবশ্যই ব্যবহার করার আগে কানের পেছনে টমেটোর রস দিয়ে একবার দেখে নেবেন।

৫) আমন্ডের ফেসপ্যাক -»
১০ টি আমন্ড  সারারাত ভিজিয়ে রেখে এটি গুঁড়ো করে পেস্ট তৈরি করে এর সাথে বাটার মিল্ক বা মালাই মিশিয়ে এই প্যাক ত্বকে লাগান। আধ ঘণ্টার মতো সময় এই প্যাক ত্বকে রাখুন। এরপর কিছুক্ষণ স্ক্রাব করে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন প্যাকটি ত্বকে উজ্জ্বলতা এনে দিতে দারুণভাবে কাজ করেছে। এই প্যাক আপনার ত্বক নরম করবে, ত্বকের ওপর থেকে মরা কোষ দূর করবে আর ত্বক হবে উজ্জ্বল। তবে আপনি যদি মালাই ব্যবহার করতে না চান তাহলে মধু বা টক দইও ব্যবহার করতে পারেন। শুষ্ক ত্বকের জন্য বেশ উপকারী এটি।

৮) বেসনের ফেসপ্যাক -»
বেসন সব সময় আমাদের ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করে ত্বককে তরুণ রাখতে সাহায্য করে। বেসন অতি প্রাচীনকাল থেকে রূপচর্চার কাজে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বেসনের সাথে মিল্ক মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে মুখে লাগান। আর শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। তৈলাক্ত ত্বকে এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করা যাবে না।

৭) পুদিনা ও মৌরির ফেসপ্যাক -»
পুদিনা পাতায় বিদ্যমান প্রাকৃতিক উপাদান ত্বকে পুষ্টি যোগানোর সাথে সাথে ত্বকে উজ্জ্বল করে তুলে। ১৫ টি পুদিনা পাতা ও মৌরি পেস্ট করে এটি মুখে লাগান এবং পুরো মুখে পেস্টটি লাগিয়ে আধ ঘন্টা মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বককে টান টান করবে আর ত্বকের ছোট ছোট পোর ঢেকে দেবে। পুদিনা পাতায়  সমস্যা থেকে থাকলে এই প্যাকটি ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।