Hoop PlusBengali Serial

তিয়াশার প্রেমিক হতে চেয়েছিলাম: সুবান রায়

শেষ হয়ে গিয়েছে ‘কৃষ্ণকলি’। এখন শ‍্যামা ওরফে তিয়াশা রায় (Tiyasha Roy)কিছুদিনের জন্য জি বাংলার ‘রান্নাঘর’-এর সঞ্চালনা করলেও এই দায়িত্বের শেষে একটু অবসর চাইছেন, বেড়াতে যেতে চাইছেন। কিন্তু তাঁর সাথে নেই তাঁর স্বামী সুবান রায় (Suban Roy)-এর সঙ্গ। কারণ সুবান পাগল হয়ে রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Tiyasha Roy (@tiyasharoyofficial)

অবশ্যই বাস্তবে নয়। ‘দেবী’ ধারাবাহিকের বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করছেন সুবান। তাঁর চরিত্রের নাম রাজু। বদ্ধ উন্মাদ রাজু ভাইয়ের বৌ ছাড়া কারও কথা শোনে না। কত দিন ভালো করে খেতে পায় না। ছেঁড়া পোশাক, গায়ে-হাতে-পায়ে নোংরা, শব্দ শুনলেই খেপে যায়। ভাইয়ের বৌয়ের চেষ্টায় অনেক কষ্টে সে নিজের বাড়িতে ফিরতে পেরেছে। সুবানের এই চরিত্র ফুটিয়ে তোলার প্রেক্ষাপটে রয়েছেন তাঁদের পরিবারের এক স্কিৎজোফ্রেনিক সদস্য। তাঁর আদলেই চরিত্রটি ফুটিয়ে তুলতে চেষ্টা করেছেন সুবান। তবে অভিনয় নিয়ে তিনি এতটাই ব্যস্ত যে, তিয়াশাকে সঙ্গ দেওয়া তাঁর পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Tiyasha Roy (@tiyasharoyofficial)

একসময় তিয়াশা যখন টলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে নিউকামার ছিলেন, তখন তাঁকে প্রতিটা পদক্ষেপ হাতে ধরে শিখিয়েছেন সুবান। এক এক সময় দমবন্ধ লাগলেও কিছু করার ছিল না। সবসময় তিয়াশাকে আগলাতে ভালো লাগত না তাঁর। চেয়েছিলেন স্বামী হতে, প্রেমিক হতে। কিন্তু পালন করতে হত তিয়াশার অভিভাবকের দায়িত্ব। এমনকি প্রয়োজনে শাসন করতে হত তিয়াশাকে। সুবানের মতে, তিয়াশা যখন অভিনয়ে আসেন, তখন বাচ্চা মেয়ে। কিন্তু তিয়াশা বরাবর সহজ-সরল। তাই তাঁকে সামলানো মুশকিল হত। কিন্তু এখন তিয়াশা অনেকটাই বড় হয়ে গিয়েছেন। নিজের মতো করে সিদ্ধান্ত নিতে শিখেছেন। ভালো-মন্দ বুঝতে শিখেছেন। ফলে সুবানের দায়িত্ব অনেকটাই কমেছে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by suban (@subanroy)

সুবান চান, তিয়াশা জীবনকে উপভোগ করুন। তবু ইদানিং বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে যখন তিয়াশা বলেন, তিনি বড় হয়ে গিয়েছেন, তখন সুবানের ভয় হয়, সত্যিই কি তিয়াশা বড় হয়েছেন! তবে স্ত্রীর থেকে এখনও অবধি তিনি বিচ্ছিন্ন নন। যে যার কাজ নিয়ে আছেন। কিন্তু যদি তিয়াশা কোনোদিন বিবাহ বিচ্ছেদ চান, তা বিনা প্রশ্নেই দেবেন সুবান। মদন মিত্র (Madan Mitra)-র সঙ্গে তিয়াশার সম্পর্কের চর্চা সুবানের কানেও এসেছে। সুবান জানিয়েছেন, ‘কৃষ্ণকলি’ ধারাবাহিকের স্বার্থে মদন মিত্রর সঙ্গে তিয়াশাকে যোগাযোগ বজায় রেখে চলতে হয়েছে। তিয়াশা বা মদন কেউই এই কথা লুকিয়ে রাখেননি। মদন নিজেও যথেষ্ট মিশুকে। এই কারণে তাঁদের ঘিরে চর্চা শুরু হয়েছে। তবে তিয়াশা যদি রাজনীতিতে যেতে চান, খুশিই হবেন সুবান।

রিল লাইফে তিয়াশার সঙ্গে জুটি বাঁধলে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয় করতে চান সুবান। তিনি মনে করেন, খলনায়কের চরিত্রে তাঁর জনপ্রিয়তা বেশি। তিয়াশার মতো শক্তিশালী অভিনেত্রীর বিপরীতে খলনায়ক হলে দারুণ জমবে বলেই মনে করেন তিনি। তবে বাস্তব জীবনে একসময়ের প্রতিবাদী সুবান সমঝোতা করতে শিখে গিয়েছেন। তিয়াশার মতো পরিবারের বাকি সদস্যদের আগলে রাখার চেষ্টা করতেন। কিন্তু অধিকাংশ সময়েই সবাই তাঁকে ভুল বুঝতেন। বর্তমানে সুবান যখন চুপ করে থাকেন, তখন তাঁরা নিজেদের ভুল বুঝতে পারেন। তবে তিয়াশার সাক্ষাৎকারে তাঁর প্রসঙ্গ ও তাঁর সাক্ষাৎকারে তিয়াশার প্রসঙ্গ অবধারিত হয়ে গেছে। একসময় এই ঘটনা নিয়ে মাথা ঘামালেও সুবান বুঝে গিয়েছেন, এটাই স্বাভাবিক ঘটনা। কারণ তাঁদের পেশা এক এবং এই ঘটনা চলতেই থাকবে।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by Tiyasha Roy (@tiyasharoyofficial)